শুভ দিন। সবাই ভাল আছেন নিশ্চয়ই। আজকে অনেকদিন পরে আপনাদের জন্য লিখা শুরু করলাম। কি লিখবো কি লিখবো ভাবছিলাম। তখন ভাবলাম একটা  মজার বিষয়  আলোচনা  করি।

আসলে দুনিয়াতে যে কপি পেস্টের খেলা চলে, তা আমরা সৃষ্টির শুরু থেকে আজ পর্যন্ত দেখে আসছি। আজকে একটি কপি পেস্টের গল্প লিখবো ।

একটা ওয়েবসাইট ২ বিলিয়ন লগ ইন করা ইউজার পায় প্রতি মাসে আর মোট মাসিক ট্র্যাফিক পায় মাত্র ৩৪.১৬বিলিয়ন । কি মনে করছেন আমি কার কথা বলছি পারলে বলেন তো? উত্তর দিচ্ছি দুই প্যারাগ্রাফ পরে। ততোক্ষণ পর্যন্ত পপকর্ণ খেতে থাকুন আমার মতন।

কপিবাজ ইউটিউবের এক গল্প
কপিবাজ ইউটিউবের এক গল্প

একটি  ওয়েবসাইট কি জানি নাম টিকটক তার সাফল্যতে  ইশ্বানিত হয়ে এক জায়ান্ট ওয়েবসাইট তার সব ফিচারকে সরাসরি কপি পেস্ট করে দিলো (মাত্র ৫০০ মিলিয়ন ট্র্যাফিক পাওয়া ওয়েবসাইট) । ভাবছেন দুর্বলের উপরে সবলের কি অত্যাচার আদিম থেকে অধম যুগ (আমাদের নৈতিকতা সর্বনিম্ন পর্যায় চলে আসছে এই যুগে) পর্যন্ত চলে এসেছে।  

আসুন আগের প্যারাগ্রাফের কুইজের উত্তর জানি। উত্তর হল ইউটিউব। জি ঠিক ধরেছেন  টিকটক জনপ্রিয়তা দেখে ইউটিউব তার পজিসন ধরে রাখতে ইন্ডিয়াতে ইউটিউব সর্টস টেস্ট করছে। টেস্ট শুরু করা হয়েছে ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২০।  খুব তাড়াতাড়ি এটি সবার জন্য উন্মুক্ত করে দেয়া হবে। এখন বেটা ভার্সন পাওয়া যাচ্ছে।

ভাবছেন কি  আছে টিকটকে যার জন্য ইউটিউব শঙ্কিত । শঙ্কিত হবার কারন জানতে হলে আমাদের কে  জানতে হবে পার্থক্যগুলি । আসুন তাহলে মেজর পার্থক্য জানি

ইউটিউবটিকটক
২০০৬ সালে গুগল কিনে নেয়২০১৮ সালে টিকটক আসে মিউজিকালি থেকে। বাইটড্যান্স চাইনিজ কোম্পানি ১২ সালে প্রতিষ্ঠা করে ।  
এখানে আপনি বিভিন্ন ক্যাটাগরির ভিডিও পাবেন।এখানে আপনি এলোমেলো ভিডিও পাবেন।
লাইভ ভিডিও দেখার সুবিধা।লাইভ ভিডিও দেখার সুযোগ নেই।
ট্রেন্ডিং ভিডিও পাওয়া যায় সহজে।ভাইরাল ভিডিও পাওয়া যায় সহজে ও ভাইরাল হওয়াটা সহজ।
চ্যানেল ক্রিয়েট করার ব্যাধবাধকতা রয়েছে।অ্যাকাউন্ট ক্রিয়েট করার ব্যাধবাধকতা রয়েছে।
কার ভিডিও ভাল লাগলে তাকে ফলো করতে হয়।কার ভিডিও ভাল লাগলে তাকে ফলো করতে হয়।
অডিয়ান্স সব বয়েসের রয়েছে।অডিয়ান্স তরুনরা(১৫-৩০ বছর)।
আপনার ইউনিক কনটেন্ট ক্রিয়েট করতে হবে টাকা ইনকাম করতে।আপনার ইউনিক কনটেন্ট ক্রিয়েট করতে হবে না টাকা ইনকাম করতে তবে কিছু বিধিনিষেধ মেনে চলতে হয়।

কি ধরতে পেরেছেন কেন ইউটিউব শঙ্কিত । না পারলে ২-৪ লাইন লিখে ছেড়ে দেই কারন আমার পপকর্ণ শেষ । কারন আমাদের প্রজন্মকে নাম করন করেছিল আমাদের পূর্ববর্তী প্রজন্ম ইউটিউব প্রজন্ম। ঠিক তেমন আমরা যারা ২৫-৪০ মাঝে তারা ১৫-৩০ তাদেরকে নিয়ে বলছি টিকটক প্রজন্ম ।সেই সাথে সাথে তার অডিয়ান্সে কমে যাবে এখন যেভাবে ১৫-৩০ কিছু ভাগ বসিয়েছে ।

 তারমানে টিকটক সামনে বিজ্ঞাপনের বিশাল অংশে ভাগ বসাবে ইউটিউবের । এছাড়া ইউটিউব সারাবিশ্বব্যাপি জনপ্রিয় সেই জনপ্রিয়তায় ভাটা পরবে। সেই ভাটার টান প্রতিহত করতে যে ইউটিউব সর্টসের আগমন তা এখন হট আলোচনার বিষয়বস্তু।

গুগল এমন অনেক অনেক প্রোজেক্ট হাতে নিয়েছে সব কিন্তু সফলতার মুখ দেখেনি । এবার কি গুগল সফল হবে ফেসবুকের মতন কপি পেস্ট করে। আমার নিজের বাজি কার পক্ষে আপনি ভাবছেন? আমার বাজি ইউটিউব সর্টস অ্যাপ ভালই টিকটককে চ্যালেঞ্জ জানাবে। আপনি কি ভাবছেন কে এই রেসে জিতবে কমেন্ট করে জানাতে ভুলবেন না।

ধর্ষণকারীকে ঘৃণা করুন, সে আমাদের কার ভাই, কাকা, মামা, বন্ধু কিছু নয়। সে একটি মানুষরূপী পশু। সাথে থাকুন নিউ আপডেট পেতে।

ধন্যবাদ ।

Comments

comments