আসালামু আলাইকুম সবাই কেমন আছেন? আশা করছি ভাল আছেন। আজকে লিখা টা আমি লিখছি আমার মতন যারা লোভী তাদের জন্য।

আমরা যারা আজকে অ্যাফিলিয়েট কালকে সিপিএ পরশু টি বিজনেস শুরু করেন তাদের জন্য।

প্রথম লিখাটি শুরু করছি একটি গল্প দিয়ে । আমরা কি জানি কিভাবে বানর ধরা হয়? প্রথমে একটা খাঁচার ভিতরে কিছু বাদাম রাখা তারপর খাঁচার দরজা খোলা রাখা হয়, যেই দরজা দিয়ে বানরের হাত খুব সহজে প্রবেশ করতে ও বাহির হতে পারে। বানর এসে বাদাম দেখে সে এক মুঠো বাদাম একবারে নেয় যারফলে তার হাত খাঁচার ভিতরে আটকে যায়।কারন তার খালি হাত বের হতে ও ঢুকাতে পারে কিছু ধরলে সেই হাত নিয়ে ঢুকাতে কিনবা বাহির করতে পারবেনা। সে আর বাদাম ছেড়ে হাত বের করেনা তার হাত খাঁচায় আটকে থাকে। তখন শিকারি এসে তাকে ধরে ফেলে।

নিজের সক্ষমতা সম্পর্কে কেন জানবেন?
নিজের সক্ষমতা সম্পর্কে কেন জানবেন?

এই গল্পে থেকে আমরা ২টি জিনিষ শিক্ষা গ্রহন করতে পারি।

#১. লোভের কারনে আমরা আমাদের নিজেদেরকে বিপদে ফেলি।নিজের ধ্বংস বা পতন টেনে আনি।

#২.  নিজের সক্ষমতা সম্পর্কে নিজের সুস্পষ্ট  ধারনা না থাকা।

এখন আমরা যারা একজনের সফলতা দেখে সেই কাজে ঝাপিয়ে পরি তাদের অবস্থা ঐ বানরের মতন  নয় কি, একবার ভেবে দেখেছেন কি?  

আসুন আমরা আমাদের নিজেদের সক্ষমতা সম্পর্কে আগে ভাল করে জানি তারপরে কাজে ঝাপিয়ে পরি।

এবার একটি সক্ষমতা সম্পর্কে গল্প বলে লিখাটি শেষ করবো। এক বনমুরগীর বাসায় একটি ঈগল পাখি দিম পেরে মারা গেল। বনমুরগী ডিমে তা দিয়ে  ঈগল পাখির বাচ্চা জন্ম দিল। কিন্তু সে বনমুরগীর বাসায় বড় হবার কারনে সে তার স্রষ্টা প্রদত্ত ক্ষমতা সম্পর্কে জানতে পারলো না । সে বড় হয়ে বন মুরগীর মতন খাবার খুটে খেতে অভ্যস্ত হল , অল্প একটু উড়ে নিচে নেমে যেতে লাগলো ।

একদিন সে আকাশের বুকে ঈগলের উড়া দেখে বনমুরগী কে প্রশ্ন করলো আমি তোঁ ঈগলের মতন দেখতে হলেও কেন এত উপরে উঠতে পারি না, কেন দীর্ঘ সময় উড়তে পারি না? তখন বন মুরগী বলল যে ওদের অভ্যাস ও সঙ্গের কারনে ওরা উপরে উঠতে ও দীর্ঘ সময় উড়তে পারে। তখন ঐ ঈগল দুঃখ করে তার জীবনের বড় অপূর্ণতার মাশুল দিয়েছিল। তারপর কিছু দিনপর সে বনমুরগীর স্বভাব নিয়ে মারা গেল।

এটা দিয়ে আমরা বুঝতে পারলাম সৎ সঙ্গ, অভ্যাস আমাদের অনেক উপরে উঠতে সহযোগিতা করে ।

এছাড়া আমরা হয়তো সিংহ হয়ে জন্মে ছিলাম কিন্তু নিজেকে নিজে আবিস্কার না করতে পারার কারনে আজকে বিড়াল হয়ে গিয়েছি।

তাই সঠিক  দিকনির্দেশনা সাথে সঠিক সঙ্গী বাছাই করুন সাথে কর্ম প্রচেষ্টা অব্যহত রাখুন তাহলে সফলতার বন্দরে আপনি আপনার জাহাজকে নোঙ্গর করতে পারবেন একদিন ।  

নিজের সত্ত্বাকে জানুন দেখবেন, আপনি ও  কার থেকে কোন অংশে কম নয়।

জানিনা আমার লেখা আপনার মনে বিরক্তির উদ্রেক ঘটালো কিনা? যদি ঘটায় তাহলে আমি করজোড়ে ক্ষমা  প্রার্থনা করছি।

আজকে যাচ্ছি আগামীতে কোন একদিন হাজির হব আপনাদের সামনে ডিজিটাল মার্কেটিং সম্পর্কিত কোন বিষয়ের লিখা নিয়ে। সবাই কে শবে বরাতের নামাজে আমার জন্য দুয়া প্রার্থনা করছি। আল্লাহ হাফিজ ।

Comments

comments